করোনা নিয়ন্ত্রণে জরুরী ঘোষণা করতে চলেছে নবান্ন, জেনে নিন কী কী ?

ওয়েব ডেস্ক করোনার কামড় (COVID-19)

HNExpress ওয়েব ডেস্ক : করোনার তৃতীয় ঢেউ নিয়ন্ত্রণে তত্‍পর রাজ্য সরকার। ইতিমধ্যেই কোভিডের তৃতীয় ঢেউ নিয়ে কেন্দ্রীয় কমিটির নয়া রিপোর্ট দেশ জুড়ে উদ্বেগ বাড়িয়েছে। অক্টোবরেই চরম আকার ধারণ করতে পারে করোনার তৃতীয় ঢেউ। এমনই সতর্কবার্তা দিয়েছে কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্র মন্ত্রকের অধীনস্থ ন্যাশনাল ইনস্টিটিউট অব ডিজাস্টার ম্যানেজমেন্ট। সোমবার প্রধানমন্ত্রীর দফতরে সেই রিপোর্ট জমা দিয়ে আরও জানানো হয়েছে যে, তৃতীয় ঢেউ-এ প্রাপ্তবয়স্কদের পাশাপাশি ঝুঁকি থাকছে শিশুদেরও।

SHEIN Many GEO's

অন্যদিকে ইতিমধ্যেই, করোনার তৃতীয় ঢেউ-এর কথা উল্লেখ করে বারবারই সতর্ক করেছেন খোদ মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। বারবারই জানা গিয়েছে করোনার তৃতীয় ঢেউ-এ আক্রান্ত হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে শিশুদেরও। কেন্দ্রীয় সরকারের রিপোর্টের পর শিশুদের জন্য আগে থেকেই প্রস্তুতি শুরু করে দিয়েছে রাজ্য সরকার। আর এবার এই পরিস্থিতির মধ্যেই করোনার তৃতীয় ঢেউ-এর মোকাবিলায় রণকৌশল ঠিক করতে বুধবার জেলা প্রশাসনের সঙ্গে জরুরী বৈঠকের ডাক দিলেন পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যসচিব হরিকৃষ্ণ দ্বিবেদী।

Times Prime [CPA] IN Times Prime [CPA] IN

জানা গিয়েছে ওই বৈঠকের পরই করোনার তৃতীয় ঢেউ মোকাবিলায় গুরুত্বপূর্ণ ঘোষণা করতে পারে নবান্ন। কড়া হতে পারে বিধি নিষেধ। এছাড়া জানা গিয়েছে, রাজ্যে করোনার তৃতীয় ঢেউ-এর মোকাবিলায় জেলা স্তরে কী কী পদক্ষেপ গ্রহণ করা হবে, শিশুদের মধ্যে করোনা সংক্রমণ ছড়ানোর বিষয়টি নজরে রেখে স্বাস্থ্য পরিকাঠামোতে কী বদল আনা হবে, এই সব বিষয়ে মুখ্যসচিবের বৈঠকে তা নিয়ে আলোচনা হতে পারে বলে সূত্রের খবর।

Pharmeasy [CPS] IN

এছাড়া, বিগত বেশ কয়েক দিন ধরেই জেলায় ট্রেন চালানো নিয়ে দাবি উঠছে। অন্যদিকে গ্রামাঞ্চলে অন্তত ৫০ শতাংশ টিকাকরণ না হওয়া পর্যন্ত ট্রেন চালানো হবে না বলেই জানিয়েছে রাজ্য সরকার জানিয়েছেন খোদ মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ও। তাই এই দিনের বৈঠকে ট্রেন চালানো নিয়েও আলোচনা হতে পারে বলে জানা যাচ্ছে।

SHEIN Many GEO's

প্রসঙ্গত, রাজ্যে বিগত কয়েক সপ্তাহ ধরেই ওঠা-নামা লেগেই রয়েছে করোনার দৈনিক সংক্রমণের। উত্তর ২৪ পরগণার পাশাপাশি সম্প্রতি কলকাতা এবং দক্ষিণ ২৪ পরগণা সহ বেশ কয়েকটি জেলাতেও করোনার সংক্রমণ ঊর্ধ্বমুখী হয়েছে।

ইতিমধ্যেই, দক্ষিণ ২৪ পরগণায় আরও সাতটি এলাকাকে মাইক্রো কন্টেনমেন্ট জোনের তালিকাভূক্ত করা হয়েছে। অন্যদিকে, রাজপুর সোনারপুর পৌরসভার ৩৫ টি ওয়ার্ডের মধ্যে ১০টি ওয়ার্ডের বেশকিছু জায়গাকে কনটেনমেন্ট জোন হিসেবে ঘোষণা করা হয়েছে জেলা প্রশাসনের তরফে। এর পাশাপাশি জেলা প্রশাসনের তরফে স্থানীয় প্রশাসনকে আরও সজাগ থাকারও নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। আর এবার এই পরিস্থিতিতে জরুরি ভিত্তিতে বৈঠক ডাকলেন মুখ্যসচিব।

ইতিমধ্যেই জানা গিয়েছে ওই বৈঠকের পরই করোনার তৃতীয় ঢেউ মোকাবিলায় গুরুত্বপূর্ণ ঘোষণা করতে পারে নবান্ন। কড়া হতে পারে বিধি নিষেধ। তারই মধ্যে এবার প্রশ্ন উঠতে শুরু করে দিয়েছে, ইতিমধ্যেই জানা গিয়েছে অক্টোবরে দুর্গাপুজোর সময়ই চূড়ান্ত পর্যায় পৌঁছাতে পারে কোভিডের তৃতীয় ঢেউ। তাই করোনা নিয়ন্ত্রণে পুজোর সময় কী কিছু এলাকায় লকডাউনের পথেও যেতে পারে রাজ্য ? উঠছে সেই প্রশ্নও।