আলোকিত এক আগামীর আশায়- প্রভা খৈতান ফাউন্ডেশনের উদ্যোগে যৌথ প্রচেষ্টায় ‘দ্য বেঙ্গল’ ও ‘রাহত’

বিবিধ

HNExpress ওয়েব ডেস্ক : সংকটের করাল গ্রাসে যখন দুঃসহ ক্ষতি, অসহায়তা মানুষের নিত্যসঙ্গী হয়ে ওঠে তখন মানবজাতি একত্রিত হয়ে দুর্যোগ মোকাবিলায় তৎপর হয়েছে, ইতিহাস তার প্রমাণ। সারা বিশ্ব যখন কোভিড-১৯ এর মত বিশ্বমহামারীর কবলে জর্জরিত তখন নিরুপায় মানুষের জীবনযাত্রা স্বাভাবিক রাখতে কিছু নির্ভীক মানুষ একত্রিত হয়ে নিরন্তর লড়াই করে চলেছে।

SHEIN Many GEO's

অভূতপূর্ব ভয়ানক এই দুঃসময়ে আর্ত পীড়িতদের পাশে দাঁড়াতে এগিয়ে এসেছেন বাংলার বিভিন্ন ক্ষেত্রের স্বনামধন্য কিছু ব্যাক্তিবর্গ ও বুদ্ধিজীবিদের নিয়ে গঠিত দ্য বেঙ্গলের সদস্যরা। মহামারী কবলিত দুঃস্থ মানুষের জন্য প্রয়োজনীয় কিছু রিলিফের ব্যবস্থা করেছেন তাঁরা। সমাজের সুচিন্তক বুদ্ধিজীবিদের মস্তিষ্কপ্রসূত এই কর্মোদ্যোগে কিছুটা হলেও নিশ্চিন্ত হতে পারছে অসহায় কিছু পরিবার। এই পদক্ষেপে দ্য বেঙ্গলের সঙ্গে যৌথ প্রচেষ্ঠায় সামিল হয়েছে প্রভা খৈতান ফাউন্ডেশনের উদ্যোগে তৈরী গোষ্ঠী ‘রাহত’। ২০২০ সালের বিধ্বংসী ঘূর্ণিঝড় আমফানে ক্ষতিগ্রস্থ অগণিত মানুষকে রিলিফ পৌঁছে দেওয়া থেকে শুরু করে, শীতের সময় দরিদ্রদের কম্বল বিতরণ করার কাজ করেছে ‘রাহত’। এই উদ্যোগের মাধ্যমে একটি ক্যাম্পেনের সাহায্যে সহানুভূতিশীল, নাগরিকদের অনুরধ করা হয়েছে সাধ্যমত দান করার জন্য। সংগৃহীত অর্থ দিয়ে ব্যবস্থা করা হবে প্রয়োজনীয় ওষুধ, অক্সিমিটার, অক্সিজেন সিলিন্ডার, অক্সিজেন কনসেন্ট্রেটর এমনকি হসপিটালের শয্যা, এই গভীর দুর্যোগের সময়ে যা একান্ত প্রয়োজনীয়। দ্য বেঙ্গল একটি ‘কোভিড রিলিফ ব্যাঙ্ক’ তৈরী করে যারা দান করতে ইচ্ছুক এবং সাহায্যপ্রার্থীদের মধ্যে সংযোগস্থাপন করার পরিকল্পনা নিয়েছে। রিলিফের মাত্রা বৃদ্ধি করে ক্ষতিগ্রস্থদের প্রয়োজনীয় সামগ্রী সরবরাহ করা হবে।

Times Prime [CPA] IN Times Prime [CPA] IN

দ্য বেঙ্গলের এই উদ্যোগের বিশেষত্ব হল, সংগৃহীত দানের সামগ্রীকে অর্থে রূপান্তরিত করে তা দিয়ে চিকিৎসার প্রয়োজনীয় উপাদান কেনা হচ্ছে। কোনো ইচ্ছুক ব্যাক্তি অর্থ দান করতে চাইলে তাঁকে দ্য বেঙ্গলের সদস্যরা যোগাযোগ করিয়ে দিচ্ছেন কোভিড-১৯ নিয়ন্ত্রণে যারা রিলিফ সামগ্রী সরবরাহ করেন তাদের সঙ্গে। সামগ্রী কেনার পর সরাসরি রসিদ পেয়ে যাবেন সাহায্যকারী। দানের অর্থ যে অপব্যবহার হচ্ছেনা সে বিষয়ে স্বচ্ছতা বজায় রাখতে এই অভিনব কৌশলের ভাবনা। ইতিমধ্যেই হসপিটালে বেডের ব্যবস্থা করা সহ প্রয়োজনীয় ওষুধ, অক্সিমিটার, অক্সিজেন কনসেন্ট্রেটর পৌঁছে দেওয়া হয়েছে প্রভাস ফাউন্ডেশন, আইএইচএ, O2কু, শবর ক্যালকাটা ফাউন্ডেশন, আর্টিস্ট ফোরাম, ৮৭ ওয়ার্ড সেফ হোম সহ বিভিন্ন স্বেচ্ছাসেবী সংস্থায়। সারা পৃথিবী যখন সংক্রমণ হ্রাস পাওয়ার ও মহামারী থেকে মুক্তির জন্য প্রার্থনা করছে, সেই অবস্থায় ‘দ্য বেঙ্গল’ সিদ্ধান্ত নিয়েছে করোনা মহামারী সম্পূর্ণ নিয়ন্ত্রণে না আসা পর্যন্ত তারা নিরলসভাবে প্রচেষ্টা চালিয়ে যাবে।

Pharmeasy [CPS] IN

দ্য বেঙ্গলের পক্ষ থেকে এষা দত্ত, নীলাঞ্জনা সেনগুপ্ত এবং স্বরূপ দত্ত সম্পূর্ণ বিষয়টি পরিচালনা করছেন। এ বিষয়ে এষা দত্ত জানান, “মহামারী রুখতে যারা সরাসরি ঘটনাস্থলে পৌঁছে কাজ করছেন তাদেরকে একত্রিত করে দ্য বেঙ্গল করোনা মোকাবিলার কাজটি আরও সুংহতভাবে করার চেষ্টা করছে। শক্তিশালী নেটওয়ার্কের মাধ্যমে পর্যাপ্ত সামগ্রী নিয়ে আমরা আর্ত নিপীড়িতদের কাছে পৌঁছে যাওয়ার চেষ্টা করছি। মানুষের প্রবল উৎসাহ ও সমর্থনে আমরা অভিভূত”।

SHEIN Many GEO's

নীলাঞ্জনা সেনগুপর কথায়, “দ্য বেঙ্গলের সদস্য হতে পেরে আমি গর্বিত। মহামারী মোকাবিলায় দ্য বেঙ্গল নিরন্তর প্রচেষ্টা করে চলেছে। শহরের বিভিন্ন স্বেচ্ছাসেবী সংস্থাকে একত্রিত করে করোনা নিয়ন্ত্রণের অভিনব উদ্যোগ নিয়েছে দ্য বেঙ্গল।

অগণিত সহৃদয় মানুষের মধ্যে জনৈক সাহায্যকারী মনীষা রামপুরিয়া বলেন, “আমি সর্বান্তকরণে সাহায্য করার চেষ্টা করছি। এই মারাত্মক পরিস্থিতি দেখে আমি সিদ্ধান্ত নিই এটিই মানুষের পাশে দাঁড়ানোর উপযুক্ত সময়। প্রতিটি সামর্থ্যপূর্ণ মানুষের উচিৎ এই উদ্যোগে সামিল হওয়া। প্রতিটি ছোট ছোট পদক্ষেপ বড় সম্ভাবনার আশা জাগাবে। মানবতার স্বার্থে আসুন আমরা একত্রিত হই”।

“ইতিহাস থেকে জানা যায় বিগত শতকের প্লেগ মহামারী রুখতে এগিয়ে এসেছিলেন, ভগিনী নিবেদিতা, কবিগুরু রবীন্দ্রনাথের মত বিশিষ্ট ব্যাক্তিত্বরা। করোনার দ্বিতীয় ঢেউ এর ধাক্কায় পশ্চিমবঙ্গ সহ সারা দেশ বিপর্যস্ত। এই সঙ্গীন অবস্থাতেও কিছু নিঃস্বার্থ মানুষ অক্লান্ত পরিশ্রম করে চলেছে মহামারী মোকাবিলায়” বললেন, প্রসিদ্ধ চিত্রপরিচালক তথা দ্য বেঙ্গলের প্রেসিডেন্ট শ্রী গৌতম ঘোষ।

“কোভিড-১৯ মহামারীর প্রাদুর্ভাবের মধ্যেও অসহায় কিছু পরিবারকে জীবনধারণের রসদটুকু জোগাড় করার জন্য আপ্রাণ চেষ্টা করতে হচ্ছে। প্রতিদিন আক্রান্ত রোগীর সংখ্যা বৃদ্ধির সাথে পরিস্থিতি আরও সঙ্কটময় করে তুলেছে অক্সিজেন সিলিন্ডার ও হসপিটালে পর্যাপ্ত বেডের অভাব। এইমূহুর্তে মানবজাতির সংকট মোকাবিলায় মানুষের সাহায্যই সবথেকে বেশী জরুরী। তাই কোভিড-১৯ প্রতিরোধে সামিল হয়েছে দ্য বেঙ্গল। সমাজের দুঃস্থ অসহায় মানুষ যারা করোনা আক্রান্ত কিন্তু চিকিৎসা পরিষেবার ব্যয় বহনের সামর্থ্য নেই তাদের সাহায্যের জন্য দ্য বেঙ্গলের পক্ষ থেকে প্রয়োজনীয় সামগ্রী সংগ্রহের উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে” জানালেন দ্য বেঙ্গলের সাম্মানিক সেক্রেটারি শ্রী সন্দীপ ভূতোড়িয়া।

দ্য বেঙ্গলের বিশিষ্ট সদস্যবৃন্দের মধ্যে রয়েছেন, শিল্পপতি এইচএম বাঙ্গুর, অনিরুদ্ধ রায়চৌধুরী, অরিন্দম শীল, অগ্নিমিত্রা পল, বিক্রম ঘোষ, ডোনা গাঙ্গুলী, নয়নতারা পালচৌধুরী, সন্দীপ ভূতোড়িয়া, গৌতম ঘোষ, জুন মালিয়া, কে জাভেদ ইউসুফ, ডঃ মনসুর আলম, শীর্ষেন্দু মুখোপাধ্যায় এবং ঊষা উত্থুপ।