প্রচুর টাকা খরচ করে ইচ্ছাকৃত ভাবে বাতাসে ছাড়ানো হয়েছে করোনা ভাইরাস, চীনা বিজ্ঞানীর দাবি ঘিরে চাঞ্চল্য

আন্তর্জাতিক ওয়েব ডেস্ক

HNExpress ওয়েব ডেস্ক : ২০১৯ সালে চীনের উহান শহর থেকে প্রথম করোনা আক্রান্তের খবর পাওয়া যায়। তারপর ধীরে ধীরে সারা বিশ্বে করোনা ছড়িয়ে পড়ে। তবে প্রথম ঢেউয়ের তুলনায় করোনার দ্বিতীয় ঢেউ বেশি সংক্রমাত্মক হয়ে উঠেছে। প্রতিদিনই ভারতে প্রান হারাচ্ছেন হাজারো হাজারো মানুষ। আর এই পরিস্থিতিতে দাঁড়িয়ে চীনের এক ভাইরাস বিশেষজ্ঞের বিস্ফোরক অভিযোগ, লালফৌজের গবেষণাগার থেকে জীবাণুযুদ্ধের মহড়া হিসেবেই ওই মারণ ভাইরাস পরিবেশে ছড়িয়ে দেওয়া হয়েছিল। এবং লি-মেং ইয়ান নামের ওই চিনা ভাইরাস বিশেষজ্ঞের দাবিতেই তোলপাড় গোটা বিশ্ব।

SHEIN Many GEO's

উল্লেখ্য, এক সংবাদমাধ্যমকে লি-মেং ইয়ান জানিয়েছেন, উহানের বাজার নয়, লালফৌজের গবেষণাগারেই বিশ্বত্রাস হয়ে ওঠা কোভিড-১৯ ভাইরাসের জন্ম, একথা লি-মেং ইয়ান কীসের ভিত্তিতে বলছেন। এর উত্তরে ওই চীনা বিজ্ঞানীর সাফ কথা, গত জানুয়ারি থেকেই ইউটিউবের মাধ্যমে আমি সকলকে জানাতে শুরু করেছিলাম যে পিপলস লিবারেশন আর্মির গবেষণাগারেই জন্ম এই ভাইরাসের।

Times Prime [CPA] IN Times Prime [CPA] IN

ইচ্ছাকৃত ভাবেই তা ছড়ানো হয়েছিল। চিনের সরকার এটা ভাল করেই জানে। তাঁর আরও দাবি, প্রচুর অর্থ বরাদ্দ করে ওই ভাইরাসকে তৈরি করেছিল চীন। এবং তা ছড়িয়ে দিয়েছিল বাতাসে। উদ্দেশ্য, মানুষের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতাকে দুর্বল করে দেওয়া। এবং সেই সঙ্গে প্রতিপক্ষ দেশগুলির চিকিত্‍সা কাঠামোকেই নড়বড়ে করে দেওয়াই লক্ষ্য ছিল বেজিংয়ের। ওই বিজ্ঞানীর দাবি, তাঁর এই অভিযোগের সপক্ষে জোরদার বৈজ্ঞানিক প্রমাণ রয়েছে তাঁর কাছে। পাশাপাশি গোয়েন্দা সূত্রে পাওয়া তথ্যপ্রমাণও রয়েছে।

Pharmeasy [CPS] IN

প্রসঙ্গত এর আগে ২০১৯ সালে ৩০ ডিসেম্বর সহকর্মীদের কাছে করোনা নিয়ে একটি সতর্ক বার্তা পাঠিয়েছিলেন ডা. লি ওয়েনলিয়াং। তখন পুলিশ তাকে আটক করে “মিথ্যা মন্তব্য করা” বন্ধ করতে বলে। লি ওয়েনলিয়াং উহান সেন্ট্রাল হাসপাতালে কাজ করার সময় ভাইরাসে আক্রান্ত হন। গত ফেব্রুয়ারি মাসে করোনায় আক্রান্ত হয়ে মারা যান চীনা চিকিত্‍সক লিন ওয়েনলিয়াং।

SHEIN Many GEO's