স্বামী-স্ত্রীর রক্তের গ্রুপ এক হলে কি হয় জানেন?

শরীর-স্বাস্থ্য

HNExpress ওয়েব ডেস্ক : বিয়ের মানেই দুজন মানুষের মিলন এবং ভবিষ্যত্‍ প্রজন্ম নিয়ে ভাবনা চিন্তার একটা প্রক্রিয়া।সমাজে বিয়ে করার মাধ্যমে সামাজিক বন্ধন গড়ে ওঠে। এরপর ভবিষ্যৎ প্রজন্ম নিয়ে ভাবাভাবি শুরু। সেই ভবিষ্যতের কথা ভেবে সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ হলো স্বামী-স্ত্রীর রক্তের গ্রুপ দেখে নেওয়া। সম্বন্ধ করে বিয়ে হোক বা প্রেম করে, বিয়ের আগে সাধারণত দুই পরিবার, আত্মীয়, ছেলে-মেয়ের চাকরি এসব বিষয় নজর থাকে সকলের।

SHEIN Many GEO's

তবে পাত্র-পাত্রীর রক্তের গ্রুপ জেনে নেয়াটাও জরুরি। স্বামীর রক্তের গ্রুপ যদি পজেটিভ হয় তাহলে স্ত্রীর পজিটিভ হতে হবে। আর যদি স্বামীর রক্তের গ্রুপ নেগেটিভ হয় তাহলে স্ত্রীর পজিটিভ বা নেগেটিভ যেকোনো একটি হলেই হবে। এক্ষেত্রে স্ত্রীর গ্রুপ যদি নেগেটিভ হয় তাহলে তার স্বামীর রক্তের গ্রুপও নেগেটিভ হলে অনেক সমস্যা এড়ানো যাবে।

Times Prime [CPA] IN Times Prime [CPA] IN

স্বামী-স্ত্রীর রক্তের গ্রুপ মিলে গেলে কোনো সমস্যা হয় না। তবে স্ত্রী যদি নেগেটিভ হয় আর স্বামী যদি পজিটিভ হয় তাহলে ‘লিথাল জিন’ বা ‘মারন জিন’ নামে একটি জিন তৈরি হয় যা পরবর্তীতে জাইগোট তৈরিতে বাঁধা দেয় বা জাইগোটকে মেরে ফেলে। সেক্ষেত্রে মৃত বাচ্চার জন্ম হতে পারে। বাচ্চা হতে পারে বর্ণান্ধ। এছাড়া যখন কোনো নেগেটিভ গ্রুপের মা পজিটিভ ফিটাস (ভ্রূণ) ধারণ করে তখন সাধারণত প্রথম বাচ্চার ক্ষেত্রে কোনো সমস্যা হবে না। কিন্ত ডেলিভারির সময় পজিটিভ ভ্রূণের রক্ত, সেন্টার এর বাঁধা ভেদ করে মায়ের শরীরে প্রবেশ করবে।

Pharmeasy [CPS] IN

মায়ের শরীরেও প্রসবের যে রক্ত প্রবেশ করবে, তা প্রসবের কয়েক মাসের মধ্যেই মায়ের শরীরে আরএইচ এন্টিবডি তৈরি করবে। যখন মা দ্বিতীয় সন্তান বহন করবেন।তখন যদি তার ভ্রূণের রক্তের গ্রুপ পুনরায় পজিটিভ হয়, তাহলে মায়ের শরীরে আগে যে এন্টিবডি তৈরি হয়েছিল সেটা প্লাসেন্টার বাঁধা ভেদ করে বাচ্চার শরীরে প্রবেশ করবে। আর যখন এটি ভ্রূণের শরীরে ঢুকবে তখন ভ্রূণের লোহিত রক্তকণিকার সেল ভেঙ্গে যাবে। এ সমস্যাকে চিকিত্‍সা বিদ্যায় বলা হয় আরএইচ ইনকমপ্যাটিবিলিটি।

SHEIN Many GEO's

আগে কখনো অ্যাবরশন না হয়ে থাকলে অনেক সমস্যা এড়ানো যাবে। শুধু সচেতন থাকতে হবে। স্বামীর ব্লাডগ্রুপ পজিটিভ হলে, বাচ্চা জন্মের পরপরই বাচ্চার ব্লাড গ্রুপ পরীক্ষা করতে হবে। যদি নেগেটিভ হয় মায়ের মতো, তবে কিছু করার দরকার হয় না। আর পজিটিভ হলে এন্টি ডী ইনজেকশন নিতে হবে ডেলিভারির ৭২ ঘন্টার মধ্যে।